শিবগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের উত্যক্তের ঘটনায় মামলা, গ্রেপ্তার ২

শিবগঞ্জ উপজেলায় চলতি এসএসসি পরীক্ষার ৯ শিক্ষার্থীর পথরোধ করে শ্লিলতাহাণির চেষ্টা, উত্যক্ত, প্রাণনাশের হুমকি প্রদান ও প্রতিবাদ করায় শিক্ষার্থীদের বহনকারী অটোরিক্সা চালককে পিটিয়ে আহত করার ঘটনায় মামলা হয়েছে। গতকাল দিবাগত গভীর রাতে ঘটনার শিকার এক ছাত্রী শিবগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতণ দমন ও দন্ডবিধির একাধিক ধারায় এজাহারনামীয় ৭ জন সহ ৪/৫জন অজ্ঞাতনামার বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলার পরপরই পুলিশ অভিযানে এজাহারনামীয় দুই আসামী গ্রেপ্তার হয়। আজ তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তাররা হল- শিবগঞ্জের কানসাট কাগজিপাড়া গ্রামের এন্তাজ আলীর ছেলে কাবিল (২৫) ও কানসাট মিলিক মোড় এলাকার মো.মুকুলের ছেলে সাকিম।
মামলার এজাহার, স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, গতকাল দুপুর দেড়টার দিকে কানসাট উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষাকেন্দ্রে পরীক্ষা দিয়ে একটি অটোরিক্সাযোগে বাড়ি ফিরছিল এসএসসি পরীক্ষার্থী শিবগঞ্জের মোবারকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ ছাত্রী ও ৩ ছাত্র। পথে কানসাট সোলেমান মিয়া ডিগ্রী কলেজের সামনে পৌঁছার পর ৪/৫টি মোটরসাইকেলযোগে আসা বখাটেরা অটোরিক্সা আরোহী শিক্ষার্থীদের প্রতি কুরুচিপূর্ণ কথা বলে উত্যক্ত করে। শিক্ষার্থীরা এর প্রতিবাদ করলে তারা অটোরিক্সার গতিরোধ করে ছাত্রীদের অটোরিক্সা থেকে টেনে নামিয়ে তাদের হাত ও পোষাক ধরে টানা হেঁচড়া করে। এসময় অটোরিক্সা চালক কবিরুল ইসলাম ঘটনার প্রতিবাদ করলে তাকে পিটিয়ে আহত করে বখাটেরা। এসময় ছাত্রীদের চিৎকারে সহপাঠী ছাত্র ও স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে বখাটেরা চলে যায়। ছাত্রীরা আরও অভিযোগ করে যে, গত ৩/৪দিন যাবৎ পরীক্ষা কেন্দ্রে যাওয়া-আসার সময় কুরুচিকর কথা বলে ওই বখাটেরা তাদের উত্যক্ত করে আসছিল।
শিবগঞ্জ থানার পরিদর্শক(তদন্ত) সুকোমল চন্দ্র দেবনাথ বলেন, এ ধরণের বখাটেদের কোনরুপ ছাড় দেয়ার কোন সুযোগ নেই। কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। পুলিশ মামলার তদন্ত ও অন্য আসামীদের গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু করেছে বলেও জানান পুলিশ কর্মকর্তা সুকোমল।

Scroll to Top