জেলায় শান্তি সম্প্রীতি ও সৌহার্দপূর্ণ সমাজ গঠনে আন্তঃধর্মীয় সংলাপ অনুষ্ঠিত ।

বৃহস্পতিবার ঃঃ ১৫.০৬.২০১৭
চাঁপাইনবাবগঞ্জ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক আবুল কালাম বলেছেন, সন্ত্রাসবাদকে প্রতিহত করে শান্তি প্রতিষ্ঠায় ধর্মীয় নেতাদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। কেন না, সমাজের সকল শ্রেণির মানুষ সকল ধর্মের নেতাদের অর্থাৎ মসজিদের ইমাম, মন্দিরের পুরোহিতদের মান্য করে। আর তাই একটি সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় ধর্মীয় নেতাদের যে যার অবস্থান থেকে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদকে নিরুৎসাহিত করতে হবে। ইসলাম ধর্ম শান্তির ধর্ম। অন্য ধর্মও শান্তির ধর্ম। সকলকে ধমীয় মূল্যবোধে উজ্জীবীত করতে হবে। তিনি বলেন-কেউ যেন অশান্তি সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। এ কাজে আপনারাও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন আশা করি। বৃহস্পতিবার সকালে প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি আয়োজিত যুব মানস গঠনে ধর্মীয় মূল্য বোধ ও সহিষ্ণুতা শীর্ষক ধর্মীয় নেতাদের আন্ত:ধর্মীয় সংলাপ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি কথা গুলো বলেন।
ইসলামিক ফাউন্ডেশন মিলনায়তনে পীস কনসোর্টিয়াম প্রকল্পের আওতায় উন্নয়ন সংস্থা রূপান্তরের সহযোগিতায় অনুষ্টিত সংলাপ অনুষ্ঠানে ইসলাম ধর্ম বিষয়ক আলোচনা করেন, নামোশংকরবাটি হেফজুল উলুম এফকে দাখিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ড. এমরান হোসেন, সনাতন ধর্ম বিষয়ে আলোচনা করেন নিরঞ্জন সরকার এবং খ্রিষ্ট্র ধর্মের আলোচক ছিলেন বিমল হাঁসদা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, প্রয়াস পীস প্রকল্পের কার্যক্রম সমন্বয়কারী মুহাম্মদ আব্দুল বারী, উপজেলা ফিল্ড অফিসার সেলিম রেজাসহ অন্যান্যরা। প্রশিক্ষণে ইসলাম, সনাতন ও খ্রিষ্ট্র ধর্মের ৫০ জন ধর্মীয় নেতা অংশগ্রহণ করেন।

Check Also

বিভিন্ন ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠ অর্জনকারী আটজনকে সংবর্ধনা

১৫ অক্টোবর ২০২২, শনিবার। জেলায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী আটজনকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। আমরা ৯৩ …