জেলার বাজারে আবারো ঊর্দ্ধমূখী ইলিশ কমেছে শীতের সবজীর দাম

শুক্রবার :: ০৬.১২.২০১৯।

আজ সকালে জেলার বাজারে গিয়ে দেখা যায়, মুদি বাজারে বেড়েছে চিকন চালেন দাম। অপরদিকে কমেছে আদা, ডিম ও কাঁচা মরিচের দাম। অন্যদিকে, দেশি মুরগি দাম কেজিতে ১০-২০ টাকা বেড়েছে । ইলিশ ও নদীর মাছের দাম বাড়লেও অপরিবর্তিত রয়েছে চাষ করা মাছের দাম। সবজি বাজারে কমেছে নতুন আলু, ফুলকপি, বাধাাকপি ও শশার দাম। জেলার মাছ বিক্রেতারা বলছেন, জালে ইলিশ মাছ ধরা না পরার কারণে আবারো বাড়তে শুরু করেছে ইলিশ মাছের দাম। বড় ইলিশ গত সপ্তাহের তুলনায় কেজি প্রতি ৩০০ টাকা এবং ছোট ইলিশ কেজি প্রতি ১৫০ টাকা বেড়েছে। নদীর পানি কমে যাওয়ায় ও বাজারে নদীর মাছের আমদানি পর্যাপ্ত না থাকার কারণে নদীর মাছের দাম বাড়ছে বলে জানায় বিক্রেতারা। এসময় মাছ বিক্রেতা শরীফুল বলছেন, ইলিশ মাছের দাম বেড়েছে অন্য মাছের দাম বাড়েনি ঠিকই আছে। ১ কেজির ইলিশে ৩০০ টাকা বেড়েছে, ৫০০-৬০০ গ্রামের ইলিশে ১৫০ টাকা বেড়েছে, নদীতে মাছ ধরা পড়ে না। সামনে আরো মাছের দাম বাড়বে। এদিকে মাছ বিক্রেতা মুমতাজুল আলী জানান,প্রায় প্রতিটা মাছের দাম কেজি প্রতি ৫০- ৬০ টাকা বেড়েছে এবং মাছ বাজার আজ অন্যান্য দিনের তুলনায় চড়া। নদীতে মাছ কম বা নদীর মাছের পরিমাণ কম বাজারে তাই মাছের দাম বেড়েছে বলে জানাচ্ছেন মাছ বিক্রেতারা।
অন্যদিকে, সবজি বাজারে কমেছে নতুন আলুর দাম। সেইসাথে কমেছে ফুলকপি, বাধাাকপি ও শশার দাম। কাচামরিচ ৬০ টাকা থেকে কমে ৪০ টাকা কেজি, পুরাতন আলু ৩০-৩২ টাকা কেজি থেকে কমে ২৫-২৬ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে বলে জানান বিক্রেতারা। সবজি বিক্রেতারা রশিদ ও বাদসা জানান, নতুন আলুর দাম ব্যাপক হারে কমে এসেছে। গত সপ্তাহে যা ছিল ১০০ টাকা কেজি আজ তা ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। বড় আলু ৮০ টাকা থেকে কমে ৫০ টাকা হয়েছে, শশা ছিল ৮০-৯০ টাকা কেজি, এসপ্তাহে ৭০ টাকা কেজি, ফুলকপি গত সপ্তাহে ছিল ৫০ টাকা কেজি এসপ্তাহে ৪০টাকা কেজি। বকিগুলো স্থিতিশীল রয়েছে। বাঁধাকপি ছিল ৩৫-৪০ টাকা কেজি এসপ্তাহে ২০-২৫ টাকা কেজি।
অন্যদিকে, গরুর মাংস ৫০০ থেকে ৫২০ টাকা ও খাসির মাংস ৭০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এ সপ্তাহে দেশি মুরগীর কেজি প্রতি ২০ টাকা এবং পাকিস্তানি মুরগীর কেজি প্রতি ১০ টাকা বেড়েছে বলে জানায় বিক্রেতারা। এসময় তারা আরো বলেন, পাকিস্তানি মুরগি আজকে ১৯৫ টাকা কেজি, ব্রয়লার ১১০ টাকা কেজি, দেশি মুরগী ৩৬০-৩৭০ টাকা কেজি, সোলালি মুরগি ১৯০ টাকা কেজি, লাল লেয়ার ১৮০ টাকা।আমদানি কম তাই দাম বেশি। হাঁসবতক ১০০০-১২০০ ছোটগুলো ৩০০ টাকা বলে জানান মুরগী বিক্রেতা রুবেল। বাজার করতে আসা ক্রেতাদের সাথে কথা হলে তারা জানান অন্যান্য সবজীর দাম শীত অনুযায়ী একটু বেশী। তবে পেঁয়াজের দাম বেশী হওয়ায় অন্যান্য পণ্যের দাম বেশী হচ্ছে। মুদি বাজারে দেখা যায় কমেছে আদা, ডিমের দাম। আদা ১৬০ টাকা থেকে কমে ১৪০ টাকা, ডিম হালি প্রতি ২ টাকা কমে ৩০ টাকা হালি হয়েছে। চিকন চাল ৩৫ টাকা থেকে দাম বেড়ে ৩৮-৪৪ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

Check Also

জেলাশহরে গাড়িতে করে ন্যায্যমূল্যে মুরগি ডিম ও দুধ বিক্রি শুরু

১২ এপ্রিল সোমবার, ২০২১। করোনা পরিস্থিতিতে জনসাধারণের প্রাণিজ পুষ্টি নিশ্চিতকরণে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদরে ভ্যান ও ট্রাকে …