চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২৭ হাজার হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে গমের

চাঁপাইনবাবগঞ্জের মানুষের খাদ্য তালিকায় ভাত ও মাসকলাইয়ের রুটির পরই রয়েছে গমের রুটি। গম চাষাবাদে খরচও কম। গমের চাহিদাও বেশি এবং বাজারে দামও ভালো। তাই চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় রবি মৌসুমে গমের আবাদ বাড়ছে। গত বছরের তুলনায় এবার প্রায় ২ হাজার হেক্টর বেশি জমিতে গমের আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আবাদ হয়েছে শিবগঞ্জ উপজেলায়।
চলতি মৌসুমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার মাঠে মাঠে এখন সবুজের বুক চিরে গাছ থেকে বেরিয়ে আসছে গমের শিষ। বাদ যায়নি ঠাঠা লাল রুক্ষ বরেন্দ্র ভূমির মাঠগুলোও। বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, কোনো জমিতে শিষ ফুটছে এবং কোনো জমিতে এখনো অপেক্ষায় রয়েছে। তবে এবার অধিক শীতের কারণে গমে শিষ কিছুটা ছোট দেখা গেছে। তারপরও শেষ পর্যন্ত প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগ না হলে গমের ফলন গতবারের মতোই হবে।
এদিকে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় ২৬ হাজার ৯৫৫ হেক্টর জমিতে গমের আবাদ হয়েছে। তার মধ্যে সদর উপজেলায় ১ হাজার ৫২৫ হেক্টর, শিবগঞ্জ উপজেলায় ৯ হাজার ৯০০ হেক্টর, গোমস্তাপুর উপজেলায় ৬ হাজার ৩০০ হেক্টর, নাচোল উপজেলায় ৮ হাজার ২৫০ হেক্টর ও ভোলাহাট উপজেলায় ৯৮০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের গম আবাদ হয়েছে।
জাতগুলোর মধ্যে রয়েছেÑ বারি-২৫, ২৬, ২৭, ২৮, ২৯, ৩০, ৩২, ৩৩, ডব্লিউএমআরআই-১, ২ ও ৩।
জেলায় সবচেয়ে বেশি জমিতে আবাদ হওয়া উপজেলা শিবগঞ্জের কৃষি অফিসার শরিফুল ইসলাম বলেন, এবার এখন পর্যন্ত যেসব জমিতে গমের শিষ ফুটেছে তাতে মনে হচ্ছে গতবারের তুলনায় কিছুটা ছোট। বৈশি^ক আবহাওয়া আর শীত মৌসুমে তাপমাত্রা কম থাকায় এমনটা হচ্ছে। তবে এখন যেহেতু তাপমাত্রা বেড়ে গেছে তাতে যদি গমের দানা বড় হয় তাহলে হয়তো ফলন গতবারের মতোই হবে।

Scroll to Top