চাঁপাইনবাবগঞ্জে গৌড় বাংলার ৯ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

চাঁপাইনবাবগঞ্জের অন্যতম পাঠকপ্রিয় দৈনিক পত্রিকা গৌড় বাংলা আরো একটি বছর পার করে সামনের দিকে এগিয়ে গেল। ২০১৫ সালের ১ ফেব্রুয়ারি পথচলা শুরু করে পত্রিকাটি। এক এক করে ৯টি বছর পার করে পদার্পণ করল ১০ বছরে। এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (০১ ফেব্রুয়ারি) পত্রিকাটি ঘরোয়া পরিবেশে আলোচনা ও কেক কাটার আয়োজন করে। প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির নকীব হেসেন মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গৌড় বাংলার সম্পাদক ও প্রকাশক হাসিব হোসেনের সূচনা বক্তব্যের মধ্যদিয়ে শুরু হয় আলোচনা। আলোচনায় বক্তারা উন্নয়ন ও কৃষি সাংবাদিকতার জন্য গৌড় বাংলাকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। পাশাপাশি তা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান। অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা বিষয়েও বক্তারা জোর দেন। তারা প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে প্রকাশিত বিশেষ ক্রোড়পত্রের জন্য গৌড় বাংলার প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।
এতে বক্তব্য দেনÑ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও অপস) মো. নূরুজ্জামান, বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক জাহাঙ্গীর সেলিম, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আলী আশরাফ, লেখক ও সাংস্কৃতিককর্মী শাহ নাওয়াজ গামা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও কলাম লেখক শহীদুল হুদা অলক, সাপ্তাহিক সোনামসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক জোনাব আলী, দৈনিক চাঁপাই দর্পণের সম্পাদক ও প্রকাশক আশরাফুল ইসলাম রঞ্জু, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের বাংলা বিভাগের শিক্ষক ও গবেষক ড. ইমদাদুল হক মামুন, হরিমোহন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও কলাম লেখক আজমল হোসেন মামুন, রহনপুর উত্তরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও লেখক মমতাজ বেগম, রেডিও মহানন্দা ৯৮.৮ এফএম’র স্টেশন ম্যানেজার আলেয়া ফেরদৌস, স্বাধীন প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফারুক আহমেদ চৌধুরী, মডেল প্রেস ক্লাব, চাঁপাইনবাবগঞ্জ’র সভাপতি টুটুল রবিউল, চাঁপাইনবাবগঞ্জ মডেল প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাজা বাবু, গৌড় বাংলার নাচোল প্রতিনিধি মতিউর রহমান, সাংবাদিক মেহেদি হাসান, প্রয়াসের প্রশিক্ষণ বিভাগের কনিষ্ঠ সহকারী পরিচালক আব্দুস সালাম ও জুনিয়র অফিসার মোমেনা ফেরদৌস অরনীসহ অন্যরা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন গৌড় বাংলার বার্তা সম্পাদক সাজিদ তৌহিদ।
অনুষ্ঠানে চাঁপাই দর্পণ, প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির বিভিন্ন ইউনিট ও রেডিও মহানন্দার পক্ষ থেকে গৌড় বাংলার সম্পাদককে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। পরে কেক কাটেন অতিথিবৃন্দ।
গৌড় বাংলার উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও অপস) মো. নূরুজ্জামান বলেন, পত্রিকা হচ্ছে সমাজের দর্পণ। সমাজের অতিগুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো করেন সাংবাদিকরা। সমাজের ভালো-মন্দ, উন্নতি-অবনতি ইত্যাদি সমস্ত বিষয় নিয়ে তারা কাজ করেন। একজন মানুষ সকালে ঘুম থেকে উঠে পত্রিকাতে চোখ বুলিয়ে নেন। অর্থাৎ আগের দিনের ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলো উনি আধা ঘণ্টা বা ১ ঘণ্টার মধ্যে জেনে নেন। কাজেই এই দৃষ্টিকোণ থেকে সমাজের দর্পণের কাজটি পত্রিকা বা সাংবাদিকবৃন্দ করে থাকেন।
তিনি আরো বলেন, সাংবাদিক ও পুলিশের মধ্যে একটি নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। সমাজের যে কোনো জায়গায় যে কোনো ধরনের অপরাধ সংঘটিত হলে আমরা কিন্তু সাংবাদিকদের মাধ্যমে জানতে পারি। অপরাধ দমনেও পত্রিকা বা সাংবাদিকের বিশাল ভূমিকা রয়েছে। আমি আশা করব, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার সাংবাদিক বা পত্রিকার সাথে সংশ্লিষ্ট আছেন তারা অবশ্যই পুলিশের সাথে গভীর সম্পর্ক রাখবেন। আমরাও আপনাদের সাথে গভীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রাখব। পত্রিকা বা সাংবাদিকদের সাথে আমাদের বিরূপ মনোভাব নেই। সাংবাদিক ও পুলিশের মধ্যে সুসম্পর্ক থাকলে সমাজের অপরাধ নির্মূল সহজ হবে।
লেখক ও গবেষক জাহাঙ্গীর সেলিম বলেন, মফস্বল থেকে দৈনিক পত্রিকা প্রকাশ করা খুব কঠিন কাজ। রিপোর্টারের কাজ হলো যে কোনো একটি বিষয় নিয়ে অনুসন্ধান করে সেটা সুন্দর করে প্রকাশ করা। সেই ধরনের ক্রিয়েটিভিটি সংবাদপত্র, রিপোর্টার সকলের মধ্যে থাকতে হবে। সেটার অভাব রয়ে যাচ্ছে। সেই অভাবটা দূর করতে হলে শুধু চাঁপাইনবাবগঞ্জই না মফস্বলের সব জায়গায় তাদের তৈরি করে নেয়ার প্রচেষ্টা চালাতে হবে। তাদের মধ্যে সৃজনশীলতা, মননশীলতা যদি না থাকে তাহলে আমরা কি করে পেরে উঠব। তিনি বলেন, আমি লেখালেখির মধ্যেও বলেছি, এই জায়গায় কাজ করা দরকার। চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ৪টা দৈনিক পত্রিকা বের হয়। তার মধ্যে অনেক ধরনের বিষয় থাকে। পত্রিকার মধ্যে তো একটা রেষারেষি থাকবেই। তিনি পত্রিকাগুলোর কোয়ালিটির ওপর গুরুত্বরোপ করে বলেন, প্রয়োজনে সংবাদকর্মীদের তৈরি করতে প্রশিক্ষণ দিতে হবে।
শহীদুল হুদা অলক বলেন, বাস্তবতার প্রেক্ষিতে মফস্বল শহর থেকে একটা সংবাদপত্রকে ৯টি বছর পার করে ১০টি বছরে নিয়ে যাওয়া এটি কঠোর পরিশ্রমের ফসল। যারা স্থানীয় সংবাদপত্রের সাথে জড়িত আছেন, তারা হাড়ে হাড়ে টের পান বিষয়টি কত কঠিন। গৌড় বাংলার এই পথচলাকে আমি ও আমার প্রিয় সংগঠন চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রেস ক্লাবের পক্ষ থেকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমরা বিভিন্ন সময় দেখেছি, সংবাদপত্র অনেক সময় হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। সেদিক থেকে, পরিচ্ছন্নতার জায়গা থেকে, মানুষকে তথ্য দেয়ার জায়গা থেকে, মানুষের তথ্য পাওয়ার অধিকারকে সুন্দরভাবে, নিরপেক্ষভাবে ও স্বচ্ছভাবে পাঠকের কাছে পৌঁছে দেবার যে প্রচেষ্টা তা যেন গৌড় বাংলা অব্যাহত রাখে সেই প্রত্যাশা করি।
সমাপনী বক্তব্যে গৌড় বাংলা সম্পাদক ও প্রকাশক হাসিব হোসেন পাঠকসহ সকলের প্রত্যাশা পূরণে একে সমৃদ্ধ করার আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, গৌড় বাংলা আজ সফলতার ৯টি বছর অতিক্রম করে ১০ বছরে পদার্পণ করল। এ দীর্ঘ সময় পাড়ি দেয়া সম্ভব হয়েছে পাঠকের ভালোবাসার কারণে। আর সম্ভব হয়েছে যারা বিজ্ঞাপন দিয়ে গৌড় বাংলার পাশে থেকেছেন, তাদের জন্য। তিনি সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।
হাসিব হোসেন বলেন, গৌড় বাংলার স্বপ্ন অনেক। সে চায়, নতুন লেখক তৈরি করতে। সে চায়, পুরো চাঁপাইনবাবগঞ্জকে লেখনীর মাধ্যমে তুলে ধরতে। সে লক্ষ্য নিয়েই কাজ করে যাচ্ছে গৌড় বাংলা। আগামীতে ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জ পিডিয়া’ নিয়ে কাজ করার ইচ্ছাও ব্যক্ত করেন তিনি এবং এজন্য সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top