৭ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২২শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ২১শে জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী | বৃহস্পতিবার | বিকাল ৩:২৮ | শরৎকাল
সর্বশেষ সংবাদ
Bangla Font Problem?

৪৬ বছরে পা রাখলেন শচীন টেন্ডুলকার

বুধবার :: ২৪.০৪.২০১৯।

১৯৭৩ সালের আজকের এই দিনে ভারতের মুম্বাইয়ে জন্মগ্রহণ করেছিলেন শচীন রমেশ টেন্ডুলকার। ৪৬ বছরে পা রাখলেন ভারতের প্রাক্তন ব্যাটসম্যান ভারতীয় এই ব্যাটিং কিংবদন্তি। ব্যাট হাতে স্কুল জীবন থেকেই নজর কেড়েছিলেন ভারতের ‘ব্যাটিং দেবতা’ শচীন। ১৯৮৯ সালের নভেম্বরে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচের মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল শচীনের। ক্রিকেট অভিধানের প্রায় সব রেকর্ডই নিজের নামের পাশে যোগ করে ‘লিটল মাস্টার’ উপাধিতে ভূষিত হয়েছেন। ক্রিকেট ইতিহাসে শচীনের মতো ব্যাটসম্যানের দেখা মিলেছে একবারই। ব্যাট-প্যাড তুলে রাখার ঘোষণা দেওয়ার আগে শচীন নিজেকে যে উচ্চতায় নিয়ে গেছেন অন্য ব্যাটসম্যানদের চোখে তা শুধু স্বপ্ন! ১৯৮৯ সালে অভিষেক হওয়ার পর অবসর নেওয়ার আগ পর্যন্ত শচীন টেস্ট খেলেছেন ২০০টি। যাতে ৫৩.৭৮ গড়ে রান করেছেন ১৫ হাজার ৯২১। ৫১টি শতক ও ৬৮টি অর্ধশতকে এই রান করেন লিটল মাস্টার। সর্বোচ্চ ২৪৮ রান। হাত ঘুরিয়ে উইকেটও নিয়েছেন ৪৬টি। টেস্টের তুলনায় শচীনের ওয়ানডে ক্যারিয়ার ছিল আরও বর্ণাঢ্য। ক্যারিয়ারে একদিনের ম্যাচ খেলেছেন ৪৬৩টি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে যা সর্বোচ্চ ম্যাচ খেলার রেকর্ড। ৪৪.৮৩ গড়ে রান করেছেন ১৮ হাজার ৪২৬। ৪৯টি শতক ও ৯৬টি অর্ধশতকে এই রান করেছেন শচীন। ওয়ানডেতে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি (২০০*) এসেছে তার ব্যাট থেকেই। উজ্জ্বল ক্যারিয়ারে ওয়ানডেতে বল হাতে তার ওয়ানডে উইকেটের সংখ্যা ১৫৬টি। ক্যারিয়ারে মোট ৬টি বিশ্বকাপ খেলেছেন শচীন। তার সর্বশেষ বিশ্বকাপ অর্থাৎ ২০১১ সালে দেশের মাটিতে বিশ্বকাপ জিতে ক্যারিয়ারের প্রাপ্তির খাতাটা ষোল কলায় পূর্ণ করেন ভারতের ব্যাটিং কিংবদন্তি। ২০১২ সালে ওয়ানডে ও ২০১৩ সালে টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় জানান শচীন।

মন্তব্য দেয়া বন্ধ রয়েছে।

একদম উপরে যান