৭ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২২শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ২১শে জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী | বৃহস্পতিবার | বিকাল ৩:৪২ | শরৎকাল
সর্বশেষ সংবাদ
Bangla Font Problem?

৪০ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ এবং বিজ্ঞান মেলা শুরু

মঙ্গলবার :: ১১.০৬.২০১৯।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, অগ্রগতির মূল শক্তি এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ৪০ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ এবং বিজ্ঞান মেলা শুরু হয়েছে। আজ সকালে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অডিটোরিয়ামে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি যাদুঘর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রনালয়ের সহযোগিতায় ও জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এ মেলার উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) আনওয়ার হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর শংকর কুমার কুন্ডু। আজ থেকে শুরু হয়েছে ৩ দিনব্যাপি ৪০ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ এবং বিজ্ঞান মেলা। আজ মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক এ.কে এম.তাজকির-উর-জামান। এর পরেই প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাজশাহী বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) আনওয়ার হোসেন বলেন, বিজ্ঞান মেলা এটা সে চিরচেনা হয়ে আসছে। আমাদের সময় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রনালয় ছিলনা এখন কিন্তু হয়েছে। এখন প্রযুক্তির অনেক অনেক মন্ত্রনালয় হয়েছে। পরবর্তীতে আরোও বেশি হবে আরোও উন্নত হবে। বিজ্ঞানকে আমরা অস্বীকার করতে পারবনা। কারন বিজ্ঞান ছাড়া আমরা চলতে পারবনা। আজকে যে টিউব লাইট জ্বলছে, আজকে যে ফ্যানটা চলছে সবকিছুতে বিজ্ঞানের সম্পর্ক রয়েছে। আমরা যদি বিজ্ঞানকেও নাও ভালবাসি তাহলে কি বিজ্ঞান থেমে থাকবে। আমি যদি বিজ্ঞান মনস্ক না বিজ্ঞান কি জানিনা তাও বিজ্ঞান থেমে থাকবেনা। আমাদের সবাইকে বিজ্ঞান সম্পর্ক জানতে হবে বিজ্ঞান মনস্ক হতে হবে। বিজ্ঞানের চর্চা করতে হবে বিজ্ঞান আবিষ্কার করতে হবে। যারা চর্চা করবে তারাই বিজ্ঞানী তাদের মাঝে একটা মহানুভবতা কাজ করবে। যারা দেশের মানুষ এমনকি সারা পৃথিবীর মানুষ উপকৃত হবে। এ মোবাইল ফোনটা কোন এক বিজ্ঞানী তৈরী করছে। মোবাইলের সুবিধা কি সে একাই ভোগ করছে সারাবিশ্বের মানুষ করছে। ছোট বড় সকলেরই হাতে ফোন। সুতরাং চাঁপাইনবাবগঞ্জের মানুষকে পরিকল্পনা করতে হবে সব কাজে কোথাও আগুন লেগেছে, কোথাও দুর্ঘটনা ঘটেছে, হাসপাতালে চিকিৎসা হোক যেকোন কাজ হোক সব কিছুতে পরিকল্পনা করছে এই চাঁপাইনবাবগঞ্জ এগিয়ে যাবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর শংকর কুমার কুন্ডু বলেন, যারা ছাত্র আছো তোমাদের সবাইকে যেকোন কাজ করার আগে ধারণা করতে হবে। আমরা জেলা প্রশাসন আছি তোমাদের যেকোন ধরনের সহায়তায় আমরা হাত বাড়াব। তোমাদের তৈরী করার চেষ্টা করব তুমি নিঃসন্দেহে একজন ক্ষুদে বিজ্ঞানী হবে। তোমরা যুবকেরা মাদককে না বলুন, ইভটিজিং কে না বলুন, সন্ত্রাস কে না বলুন, বাল্যবিয়েকে না বলুন। হ্যাঁ বলুন বিজ্ঞানকে, রোবটকে, রোবটজুমকে। একদিন এই চাঁপাইনবাবগঞ্জের ছেলেমেয়েরা রোবট তৈরী করবে, রোবটের যন্ত্র তৈরী করবে দিয়ে বিশ্বে নাম অর্জন করবে। সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক বলেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, অগ্রগতির মূল শক্তি। অগ্রগতি হচ্ছে দ্রæত অগ্রগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। উন্নয়নের মহাসড়ক ধরে দ্রæত গতিতে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ২ বছর পর আমরা কোথায় যাব ২০৪১সালে কোথায় কি করব সব জানতে পেরেছি। এজন্য আমাদের দরকার সোনার মানুষ। আর সোনার মানুষগুলো পিছনে পড়ে রয়েছে। সোনার মানুষগুলো দেশ গড়বে আর সেটা তোমরা তরুণরাই পারবে। সোনার মানুষগুলো কেমন হবে সেটা আমাদের নির্ধারন করতে হবে। আমরা চাঁদের জোছনা দেখতে চাই আমরা এমন সোনার মানুষ চাই, যারা দেশটাকে চাঁদের আলোর মত করে রাখে। সোনার মানুষ হবে বিজ্ঞান মনস্ক বিজ্ঞান মনস্ক, উন্নয়ন মনস্ক, এটা খুব গুরুত্বপূর্ন বিষয়। উন্নয়নকে চাইতে হবে ধারণ করতে হবে। আমাদের সোনার মানুষ উন্নয়ন মনস্ক হবে। আমাদের সোনার মানুষটাকি আত্মসম্মান বোধ থাকতে হবে। তারা আত্মপ্রত্যায়ী বিশ্বাসী হবে তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আগ্রহী হবে। যারা দেশের জন্য জীবন দিয়েছে রক্ত দিয়েছে তাদের প্রতি সম্মান করবে। সামনে এই মেলাটি আরোও বড় হবে এইজন্য প্রত্যেকটা শিক্ষককের উচিত প্রত্যেকটা স্কুল থেকে বেশি করে ছাএ আনবে তারা দেখবে জানবে। সকলের প্রচেষ্টায় এই চাঁপাইনবাবগঞ্জ বিজ্ঞান মনস্ক ও উন্নয়নের দিক দিয়ে এগিয়ে যাবে। এসময় আরোও উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. আলমগীর স্বপন, ময়মনসিংহ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. আনোয়ারুল আবেদীন, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর হোসেনসহ ৫টি উপজেলার শিক্ষক শিক্ষার্থীরা। উল্লেখ্য, মেলায় ১৬ টি স্টল অংশগ্রহণ করেন।

মন্তব্য দেয়া বন্ধ রয়েছে।

একদম উপরে যান