৫ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২০শে জুলাই, ২০১৯ ইং | ১৭ই জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী | শনিবার | বিকাল ৩:২৮ | বর্ষাকাল
সর্বশেষ সংবাদ
Bangla Font Problem?

সদর উপজেলায় কৃষকদের মাঝে আউশ বীজ এবং সার বিতরণ

মঙ্গলবার :: ২৩.০৪.২০১৯।

বর্তমান মৌসুমে উফশী আউশ উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় ২০১৯-২০ অর্থবছরে উফশী আউশ বীজ এবং রাসায়নিক সার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। আজ সকালে সদর উপজেলা পরিষদ হলরুমে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে এ সভার উদ্বোধন করা হয়। সভায় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক। প্রতি জন কৃষককে ডি.এ পি সার ১৫ কেজি, এম ও পি সার ১০ কেজি ও ধানের বীজ ৫ কেজি করে মোট ৭ হাজার ৫শ কেজি ডিএপি সার, ৫ হাজার কেজি এমওপি সার ও ২ হাজার ৫শ কেজি উচ্চ ফলনশীল বীজ প্রদান করা হয়। সদর উপজেলার এসএপিপিও আশরাফুল হকের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর ফিরোজ। এ সময় প্রধান অতিথির বক্তেব্যে জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক কৃষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, বিভিন্ন সময় বিভিন্ন প্রণাদনা দেওয়া হয়। ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের এবার যেটি দেওয়া হয়েছে সেটি হচ্ছে উফশী আউশ বীজ এবং রাসায়নিক সার। আমাদের প্রতিটি মানুষের বিনোদন প্রয়োজন। আপনারা আপনাদের ছেলেমেয়েদের অবশ্যই কাজ না করিয়ে স্কুলে পাঠাবেন লেখাপড়া করতে। আপনারা আপনাদের ছেলেমেয়েকে ভালবাসুন একটু যতœ নেন। এই বীজ পেয়ে আপনারা আপনাদের দায়িত্বের সাথে, সচেতনতার সাথে কর্তব্যের, সাথে ভালবাসার সাথে বীজটি সংরক্ষণ করবেন। আমরা আমাদের নিজের কাজ নিজে করে ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটাব। আমি আশা করি সামনে ভাল ফলন দেখতে পাব। বিশেষ অতিথির বক্তেব্যে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) দেবেন্দ্রনাথ উরাঁও বলেন, মা আমার মাটি আমার। আমরা বাংলাদেশে বাস করি। আমাদের সকলেরই দায়িত্ব রয়েছে আমরা মাটি নষ্ট করব না। মাটি নষ্ট করলে পৃথিবী নষ্ট হয়। আমাদের কৃষকদের সবাইকে সচেতন হতে হবে দায়িত্ব হয়ে কাজ করতে হবে। আমি বলতে চাই, সব সাধকের বড় সাধক আমার দেশের চাষা, দেশ মাতারি মুক্তি কামি দেশের সে যে আশা। সভাপতির বক্তেব্যে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন বলেন, সঠিক সময়ে আমরা কাজ করব। আমাদের জাতির পিতা যেমন স্বপ্ন দেখিয়েছিল সোনার বাংলা গড়ার, আমরা সেটা করব। আমরা আপনাদের আসস্ত করতে চাই যে, কোন ভেজাল দ্রব্য বাংলাদেশে বা বাজারে থাকবে না। আমরা ভেজাল মুক্ত সব কিছুই রাখতে চাই। এ জন্য আপনাদের সহযোগিতা দরকার। আপনারা কৃষকরা আমাদের সাহায্য করতে পারেন। আমি আশা করি সামনে আপনারা একটি ভাল কাজ করে দেশের উন্নয়ন করবেন। এসময় আরোও উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলার চেয়ারম্যান মোখলেশুর রহমান, সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা সোহরাব আলী, চরঅনুপনগর ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা আলহাজ্ব মনোয়ার হোসেন, গোবরাতলা ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা বিনয় কুমার কর্মকারসহ প্রণোদনাভুক্ত কৃষকেরা। উল্লেখ্য, সদর উপজেলায় ১৪টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার মোট ৩ হাজার কৃষকদের আউশ বীজ এবং রাসায়নিক সার দেওয়া হবে। এরই ধারাবাহিকতায় আজ ৫০০ জন কৃষককে দেওয়া হয়।

মন্তব্য দেয়া বন্ধ রয়েছে।

একদম উপরে যান