৬ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২০শে জুন, ২০১৯ ইং | ১৭ই শাওয়াল, ১৪৪০ হিজরী | বৃহস্পতিবার | বিকাল ৫:৩৩ | বর্ষাকাল
সর্বশেষ সংবাদ
Bangla Font Problem?

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর বর্ষপূর্তি এবং সেবা বিপণন কার্যক্রম উদ্বোধন, আলোচনা সভা ও পুরষ্কার বিতরণ

শনিবার :: ১৮.০৫.২০১৬।
জেলায় বিশ্ব টেলিযোগাযোগ ও তথ্য সংঘ দিবস ও বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর উৎক্ষেপণের বর্ষপূর্তি এবং সেবা বিপণন কার্যক্রম উদ্বোধন উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ সকালে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে টাউন ক্লাব মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট দেবেন্দ্রনাথ উরাঁও এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর উৎক্ষেপন করে মে মাসে। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বের ৫৭ তম দেশ হিসেবে কৃত্রিম উপগ্রহের মালিক হিসেবে মর্যাদা অর্জন করেছে। অনুষ্ঠানে নবাবগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মনোয়ারা বেগম বলেন যে যত বেশি আতস্ত করতে পারছি শিখতে পারছি সে ততই জানতে পারছি। তথ্যের ভান্ডার লাভ করে। আমরা মোবাইলের মাধ্যমে সব জানতে পারছি। প্রযুক্তি আমাদের কাছে অনেক কিছুই দিয়েছে। আজ আমরা স্বাধীন আজ আমরা সব করতে পারি । আমি আমার মত তরে আচড় কাটব । আমি আমার মত করে সব করব। এরকম আজ আমরা একটি স্যাটেলাইট পেয়েছি। প্রধান অতিথির বক্তব্যে, জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে বহুমুখী শিক্ষা ও কর্মক্ষেত্রের সুযোগ তৈরি হয়েছে,আমাদের সবার হাতে ফোন আছে আমরা আবার কেউ কেউ শুধু লাল সবুজ টিপতে পারি এটার কারন বৈষম্য। আমাদের সবাইকে দেশকে উন্নয়নের শিকরে পৌছে দেবার জন্য এই মোবাইলটি তৈরি হয়েছে। আমাদের সবার মাঝ থেকে গ্যাপ দুর করতে হবে। গত বছরে আমরা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর উৎক্ষেপন করতে আমরা সক্ষম হয়েছি। এটা থেকে আমরা এখনো পুরোপুরি সুবিধা পায়না বা পায়নি বা পাব। কিন্তু আমরা আজ থেকে ২ থেকে ৪ বছরের পর আমরা একটি আয়ের জায়গা তৈরী করে নিতে পারব। আমরা যকন পুরোপুরি এটাকে তৈরী করতে পারব তখন কিন্তু আমরা আর অন্যদেশের কাছে যাব না চাইবনা কিছু। তখন বিদেশের চাহিদা আমরা মেটাতেই পারব। তখন আমাদের বৈষম্য দুর হবে, আমাদের উন্নতি দূর হবে। এখানে যারা আপনারা কম্পিউটার ল্যাবের দায়িত্বে আছেন আপনাদের এই গ্যাপটাকে কমানোর জন্য সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে। এ ক্ষেত্রে আপনার ক্ষেত্রে আপনি একজন লিডার। আমরা যদি সঠিকভাবে কাজ করতে পারি প্রত্যেকটা ছেলেমেয়েকে সঠিক ভাবে শিখাতে পারি তাহলে আমাদের আর সমস্যা হবে না । আমরা মোবাইলের মাধ্যমে সব কাজ করতে পারি। আমরা সবসময় এর কাজ করব কিন্তু আপনারা মাঠ পর্যায়ে যারা আছেন তারা সঠিকভাবে তথ্যটা পৌছে দিবেন এটা আপনাদের দায়িত্ব। আমরা যারা এখানে শিক্ষার্থী আছি তারা অবশ্যই এই মোবাইলটাকে শুধু ফেসবুকে ব্যবহার করব না। আমরা এটা দিয়ে বিভিন্ন ব্যবসা করতে পারি অনেক কিছু জানতে পারি। আমরা খারাপ দিকটাকে দুরে ঠেলে আমরা সর্বোচ্চ ভাল দিকটা ব্যবহার করব। সভাপতির বক্তব্যে জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট দেবেন্দ্রনাথ উরাঁও বলেন,আমরা আমাদের দেশকে ভালবাসব। সবাই একসাথে কাজ করব। এ দেশ আমার একা নয়। এদেশ সবার এদেশের সোনার স্বপ্নটাকে স্বপ্ন করে রাখব। এ সময় আরোও উপস্থিত ছিলেন, পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম, নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শংকর কুমার কুন্ডু, জেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা আনন্দ কুমার অধিকারী,সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর হোসেনসহ বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা।

মন্তব্য দেয়া বন্ধ রয়েছে।

একদম উপরে যান