৬ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২০শে জুন, ২০১৯ ইং | ১৭ই শাওয়াল, ১৪৪০ হিজরী | বৃহস্পতিবার | বিকাল ৫:০৮ | বর্ষাকাল
সর্বশেষ সংবাদ
Bangla Font Problem?

জেলায় হজ যাত্রীদের প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন

মঙ্গলবার :: ১১.০৬.২০১৯।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মিলনায়তনে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রাণালয়ের উদ্যোগে সরকারী বেসরকারী ব্যবস্থাপনায় হজ যাত্রীদের প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন রাজশাহী বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) ও অতিরিক্ত সচিব আনোয়ার হোসেন। কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এ কে এম তাজকির-উজ-জামান, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক আবুল কালাম, রাজশাহী নাট্যকলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড.আলমগীর স্বপন, সিভিল সার্জন ডাঃ এসএফএম খাইরুল আতাতুর্ক, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাস্টার ট্রেইনার তরিকুল ইসলাম, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ফিল্ড সুপারভাইজার আতাউর রহমানসহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকসহ প্রশিক্ষনার্থীরা। ৬ দিনব্যাপি হজ যাত্রীদের প্রশিক্ষণ উদ্বোধনীতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাজশাহী বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) ও অতিরিক্ত সচিব আনওয়ার হোসেন বলেন, পবিত্র কা’বা শরীফে যখন আপনারা যাবেন তখন আপনারা এই দুনিয়ার কথা ভুলে যাবেন, এ দেশের কথা ভুলে যাবেন তখন শুধুমাত্র আল্লাহর কথা স্মরণে থাকবে। তিনি আরো বলেন, যারা হজ যাত্রী হজে যাবেন হজ করে আসার পরে আপনার অবস্থাটা সদ্যজাত শিশুর মতো, ভুমিষ্ট শিশুর মতো নিষ্পাপ হয়ে যাবে। তার পরের কার্যক্রমটা যেন আমরা ইমান আকিদার সাথে চলতে পারি ইসলামের পথে চলতে পারি সেইভাবে আমাদের প্রস্তুতি নিতে হবে। কারণ, যদি হজ করে আসার পর আবার কোনো খারাপ কাজে লিপ্ত হই তবে তো আর হজ করে কোনো কাজে আসবে না। আপনার যদি আচরণ ভালো হয়, আপনার যদি চলাফেরা ভালো হয় তবে আমাদের দেশের সুনাম হবে। যদি আপনার চলাফেরা, আচরণ যদি ভালো না হয় তবে দেশের একটা বদনাম হবেসুতরাং আপনি কিন্তু দেশকে প্রতিনিধিত্ব করছেন। হজ এমন একটা ফরজ কাজ যেটা সবার দ্বারা সম্ভব না, নামাজ রোযা সবার জন্য ফরজ কাজ তবে আর এই হজ হচ্ছে যারা আর্থিকভাবে স্বচ্ছল তাদের জন্য ফরজ কাজ। হজ বিলাসীতার কাজ না অনেক কষ্ট করতে হবে তাই শারীরিক সক্ষমতা থাকতে হবে। সিভিল সার্জন ডাঃ এস এফ এম খাইরুল আতাতুর্ক স্বাস্থ্য সচেতনতায় হজ যাত্রীদের উদ্দ্যেশ্যে বলেন, খেজুর বেশি খাওয়ার ফলে ডায়াবেটিস রোগীর ডায়াবেটিস বেড়ে যায় তাই খাওয়ার বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে। যারা হজে যাই আমরা খেয়াল করে দেখেছি অনেকেরই ডায়াবেটিকস থাকে, ডাযাবেটিস থাকার জন্যে আপনারা ওষধপত্র খেয়ে থাকেন। আবার কেউ ওষুধটা ঠিকমতো খান না। আবার কেউ এত বেশি খেজুর খান যে একটা খেজুরে সুগার অনেক বেড়ে যেতে পারে। প্রেসারের যে টেম্পারেচার থাকে সেগুলা বেড়ে যায়। আপনারা লিকুইড জাতীয় খাবারগুলো বেশি খাবেন। আর খালি পেটে ফল খাবার কোনো নিয়ম নেই। আপনার কর্বোহাইড্রেড যুক্ত খাবার বিস্কিট হোক, চিড়া হোক খাবেন, তারপর ফলমুল খাবেন। সুগারবিহিন জুস খাবেন। সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক এ জেড এ নূর”ল হক বলেন, আপনারা যাচ্ছেন নিরাপদে যান নিরাপদে ফিরে আসুন। ঘরের ছেলে ঘওে ফিরে আসুন ঘরের মেয়ে ঘরে ফিরে আসুক। যারা ইতোপূর্বে গিয়েছেন তাদের তো বলার কিছু নাই অভিজ্ঞতাই সবচেয়ে বড় প্রশিক্ষণ। যারা যাননাই তাদের অনেক কিছু জানতে হবে। আজকে আমাদের প্রশিক্ষনার্থীদের প্রশিক্ষক হিসেবে যারা আছেন তারা বিস্তারিত আপনাদেরকে বলবেন। যারা নতুন যাচ্ছেন তারা সব কিছু জেনে যাবেন। আপনারা হজ করবেন আপনাদেও হজ আল্লাহ কবুল করুক এই দুয়া করি। আর যেহেতু পবিত্র ঈদ উল আযহায় আপনারা থাকবেন না সেহেতু আপনাদেরকে অগ্রীম ঈদ মোবারক।

মন্তব্য দেয়া বন্ধ রয়েছে।

একদম উপরে যান